নতুন বছরে ভাগ্য পরিবর্তন করবেন যেভাবে!

0
127

আর মাত্র  একদিন পরেই হিসেবনিকেশ তুলে রেখে চলে যাবে ২০১৬৷ স্বাগত জানানোর পালা নতুন বছরকে৷ তবে তার আগে একবার পুরনো বছরেরদিকে ফিরে তাকানো ভাল৷ কিছু ভাল স্মৃতির পাশাপাশি কিছু খারাপ ঘটনাও থাকবে৷ হয়তো একটু সচেতন হলেই তা এড়ানো যেত৷ কিন্তু নিজের ভুলেই তা করা হয়েওঠেনি৷ নতুন বছরে আবার সেই একই ভুল না করাই ভাল৷ আর তাই ২০১৭-য় সৌভাগ্যের সন্ধানে অবশ্যই মেনে চলুন কিছু টিপসঃ

১) বসার ঘরে কি পরিবারের সকলের ছবি আছে? নিদেনপক্ষে গ্রুপ ফটো! না থাকলে টাঙিয়ে ফেলুন৷ সংসারে সংহতির জন্য এ জিনিস জরুরি৷ এমনটাই মত বাস্তু বিশেষজ্ঞদের৷

 

২) পড়াশোনার সময় সন্তান কোন দিকে মুখ করে বসে? খেয়াল রাখুন যাতে সে পূর্বমুখো হয়ে বসে৷ পড়াশোনায় মনযোগী হয়ে ওঠার ক্ষেত্রে এটি জরুরি৷

 

৩) ঘরের সদর দরজা খুলেই কি ডাইনিং রুম চোখে পড়ে? এমনটা না হওয়াই ভাল৷ একান্ত হলে কোনও একটা আড়াল টানার চেষ্টা করুন৷

 

৪) পচা খাবার, শুকনো ফুল, ছেঁড়া কাপড়, বাতিল কাগজপত্র, কৌটো এসব ঘরের মধ্যে জমা না করে রাখাই ভাল৷

 

৫) ঘরের আশেপাশে কি গাছ আছে? খেয়াল রাখুন কলাগাছ বা পিপুলের ছায়া যেন আপনার বাড়ি বা জানালায় না পড়ে৷

 

৬) ঘরে কি তুলসী গাছ আছে? না থাকলে ঘরের উত্তর-পূর্ব কোণ দেখে একটি তুলসীর টব বসান৷ তুলসীর থেকে উপকারী গাছ আর কী আছে৷

 

৭) ঘরের আসবাবগুলো কি ছড়িয়ে ছিটিয়ে, যেমন তেমন করে আছে? তাহলে আজই গোছানো শুরু করুন৷ চেষ্টা করুন যাতে চতুষ্কোণ বা বৃত্তাকার ফর্মে আসে৷

 

৮) বেডরুমে টিভি না রাখাই ভাল৷ লিভিং রুমেই জায়গা হোক টিভির৷ সাধারণত দক্ষিণ-পূর্ব কোণে রাখারই নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে৷

 

৯) রান্নাঘরে কোনও আয়না রাখবেন না৷ ঘরের কোণগুলি যদি অন্ধকার হয়ে থাকে তবে আলোর ব্যবস্থা করুন৷ সদর দরজার সামনেও উজ্জ্বল আলো রাখবেন৷

 

১০) ঘরে যদি পেন্টিং রাখেন তবে হতাশাজানক যেমন কান্নার রাখবেন না৷ বরং সূর্যোদয় বা ওই জাতীয় কিছু রাখতে পারেন৷ যাতে একটা পজিটিভিটি থাকে৷

 

১১) ঘরে কি অ্যাকোয়ারিয়াম আছে? তাহলে দেখুন সেটি উত্তর-পূর্ব কোণে আছে কি না? যদি না থাকে তবে সেই জায়গায় রাখুন৷ ন’টি গোল্ড ফিস ও একটি ব্ল্যাক ফিস রাখা মঙ্গলজনক৷

এই কাজগুলো করলে কি সত্যিই সৌভাগ্য আসবে? আসলে এরকম কোনও ধরাবাঁধা নিয়ম নেই৷ তবে প্রত্যেকটা পরামর্শের পিছনেই কিছু না কিছু বাস্তব যুক্তি আছে৷ খেয়াল করলেই তা বোঝা যায়৷ কোনওটা হয়তো পরিচ্ছন্নতার কথা বলছে, কোনওটা বা অন্ধকারে বিপদে না পড়ার কথা বলছে৷ অর্থাৎ এগুলো মানলে সাধারণ বিপদ আপদ থেকে রেহাই তো পাওয়া যায়৷ তাই সৌভাগ্যের সন্ধানে কিছু টিপস মানতে আপত্তি কীসের!

 

Please follow and like us:
20

Comments

comments

SHARE
Previous articleশিক্ষার্থীদের মোবাইল গেমস আসক্তি
Next articleবিজ্ঞানীরা বলছেন কাজে মন বসানোর কিছু সহজ উপায়
আমি শারমিন আক্তার মুক্তা। আমি বাংলাদেশে বাস করি এবং জন্ম সূত্রে বাংলাদেশি। আমি খুব সাধারন একটা মেয়ে, ন্যায়বান, বন্ধুভাবাপন্ন, স্বাধীন মতাবলম্বী। আমি জটিলতা, অসততা, মিথ্যাবাদিতা পছন্দ করিনা। আমি সব কিছুর ভাল দিকটা চিন্তা করি। আমার দুর্বলতা হল আমি অন্য মানুষকে খুব সহজেই বিশ্বাস করি। আমার শখ বই পড়া ওগান শোনা ।