একটু সতর্ক হলেই মুখের দুর্গন্ধ দূর করা সম্ভব !!

0
15

সুন্দর চেহারা, মিষ্টি হাসি… অথচ তারপরও অনেকে কাছে আসতে চায় না৷ তার ওপর এই না আসার কারণটাও কেউ বলে না সরাসরি৷ মুখে গন্ধ! চলুন, এর কারণ ও দূর করার কিছু উপায় জেনে নেওয়া যাকঃ

সবসময় শুধু সুন্দর মুখই যথেষ্ট নয়ঃ
মিষ্টি মুখ আর সুন্দর হাসি থাকলে এই ছবিটির মতোই হওয়ার কথা তাই নয় কি? তবে অনেকক্ষেত্রেই তা হয় না শুধুমাত্র মুখের দুর্গন্ধের কারণে৷ অথচ কিছুটা সতর্ক হলেই কিন্তু এর থেকে মুক্তি পেয়ে আবারো সবার প্রিয় হয়ে ওঠা সম্ভব!

জিবঃ
দুর্গন্ধ যুক্ত নিঃশ্বাসের কারণ ব্যাকটেরিয়া, বিশেষ করে জিবের ওপর বাসা বাঁধা জীবাণু৷ তবে অনেকের জিব দেখে প্রথমে বোঝা না গেলেও, ভালো করে লক্ষ্য করলে দেখা যায় যে, ব্যাকটেরিয়াযুক্ত জিবে রুক্ষতা ও অসমতা রয়েছে৷

প্রধান কারণ
মুখে দুর্গন্ধের প্রধান কারণগুলো হচ্ছে নিয়মিত মুখ, দাঁত, মাড়ি ও জিবের যত্ন না নেওয়া৷ যাঁরা নিয়মিত ওষুধ খান, তাঁদের তা থেকেও মুখে দুর্গন্ধ হতে পারে৷ কারণ ওষুধ সেবন মুখের লালা উৎপাদন কমিয়ে ফেলে, বলেন মিউনিখ শহরের ফার্মাসিস্ট ক্রিটিয়ানে শল্টেন৷

জিবের স্তর
জিবে জমা হয় তিন রকমের ব্যাকটেরিয়ার স্তর আর সেই স্তর থেকে দুর্গন্ধের সৃষ্টি হয়৷ তাই ডাক্তারদের কথায়, ভালো করে মুখ পরিষ্কার করা প্রয়োজন৷ তবে শুধু দাঁত পরিষ্কার করা যথেষ্ট নয়৷ প্রতিদিন ভালোভাবে, অর্থাৎ ছবিতে যেভাবে দেখানো হচ্ছে ঠিক সেভাবে জিব পরিষ্কার করতে হবে৷ তবে সেটা করতে হবে জিবে কোনোরকম আঘাত না দিয়ে৷

দাঁতের ফাঁকঃ
দাঁতের ফাঁকে যেসব খাবার জমে থাকে, সেগুলো খুব ভালো করে পরিষ্কার করা দরকার৷ জমে থাকা খাবার থেকে দুর্গন্ধ বের হয়৷ তাই প্রতিদিন সকাল এবং রাতে বিছানায় যাওয়ার আগে যত্ন করে মুখ পরিষ্কার করতে হবে৷ ভালো হয় যদি যে কোনো কিছু খাওয়ার পরপরই মুখ পরিষ্কার করা যায়৷

ডাক্তারি পরামর্শঃ
মুখের যাঁদের দুর্গন্ধ রয়েছে, তাঁদের প্রথমেই আলোচনা করা দরকার দাঁতের ডাক্তারের সাথে৷ কারণ তিনিই সমাধান খুঁজে দেবেন৷ মুখে দুর্গন্ধ পেট বা লিভারের কোনো সমস্যার কারণে হতে পারে৷ তাই প্রয়োজনে দাঁতের ডাক্তার অন্য ডাক্তারের কাছেও পাঠাতে পারেন৷ দুর্গন্ধের সঠিক কারণ খুঁজে পেলেই যে সঠিক চিকিৎসা সম্ভব!

ছোট থেকেই শিক্ষাঃ
বাচ্চাদের ছোটবেলা থেকেই শেখানো প্রয়োজন কীভাবে দাঁত এবং মাড়ি পরিষ্কার করতে হয়৷ প্রতিদিন সকালে এবং রাতে অবশ্যই দাঁত ও জিব ব্রাশ করা প্রয়োজন, ঠেক যেমন প্রতিদিন শরীর ঠিক রাখতে খাওয়া-দাওয়া দরকার৷

সহযোগিতাঃ
মুখে দুর্গন্ধের বিষয়টি নিয়ে কেউ কথা বলে না৷ অথচ এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো হয় যদি যাঁর সমস্যা, তাঁকে কোনোরকম আঘাত না দিয়ে সরাসরি সুন্দরভাবে বিষয়টি সম্পর্কে আলোচনা করা যায় বা পরামর্শ দেওয়া যায়৷

চুইংগামঃ
সাময়িকভাবে মুখের গন্ধ দূর করতে সাহায্য করে বিভিন্ন ধরণ এবং স্বাদের চুইংগাম৷ তাছাড়া শুকনো জিবে মুখের লালা উৎপাদনেও কিছুটা ভূমিকা রাখে চুইংগাম৷

শক্ত দাঁত ও মাড়িঃ 
ঝকঝকে শক্ত দাঁত ও মাড়ি হলেই শুধু এ রকম তাজা কচকচে আপেলের পুরো স্বাদ গ্রহণ করা সম্ভব৷ এর জন্য অবশ্য যথেষ্ট ফলমূল এবং সবজিও খেতে হবে, যাতে করে পেট পরিষ্কার থাকে৷ তাছাড়া দিনে অন্তত দশ গ্লাস পানি খাওয়া প্রয়োজন৷ এই পরামর্শই দিয়ে থাকেন বিশেজ্ঞরা৷

Please follow and like us:
20

Comments

comments

SHARE
Previous articleযমজ ফল খেলে কি সত্যি যমজ সন্তান হয়?
Next articleএকুশ শতকের গুহামানব
আমি শারমিন আক্তার মুক্তা। আমি বাংলাদেশে বাস করি এবং জন্ম সূত্রে বাংলাদেশি। আমি খুব সাধারন একটা মেয়ে, ন্যায়বান, বন্ধুভাবাপন্ন, স্বাধীন মতাবলম্বী। আমি জটিলতা, অসততা, মিথ্যাবাদিতা পছন্দ করিনা। আমি সব কিছুর ভাল দিকটা চিন্তা করি। আমার দুর্বলতা হল আমি অন্য মানুষকে খুব সহজেই বিশ্বাস করি। আমার শখ বই পড়া ওগান শোনা ।