বুড়ো হিপিরা বড় নস্টালজিক আজ : তসলিমা নাসরিন

0
8
বুড়ো হিপিরা বড় নস্টালজিক আজ : তসলিমা নাসরিন
বুড়ো হিপিরা বড় নস্টালজিক আজ : তসলিমা নাসরিন

বুড়ো হিপিরা বড় নস্টালজিক আজ : তসলিমা নাসরিন

বুড়ো হিপিরা বড় নস্টালজিক আজ : তসলিমা নাসরিন
বুড়ো হিপিরা বড় নস্টালজিক আজ : তসলিমা নাসরিন
গায়ক-গীতিকার বব ডিলান
সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পাওয়ার পর গায়ক-গীতিকার বব ডিলান নিজে নীরব থাকলেও তাকে ঘিরে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। অনেক শক্তিশালী মার্কিন সাহিত্যিক থাকার পরও কেন তিনিই সাহিত্যে নোবেল পেলেন এমন প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। তাদের একজন প্রবাসী কবি এবং কথাসাহিত্যিক তসলিমা নাসরিন।
নাসরিন তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘টনি মরিসন সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন ২৪ বছর আগে ১৯৯২ সালে। তার পর আর কোনো আমেরিকান নোবেল পাননি। সুইডিশ একাডেমির নোবেল কমিটি তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন একজন আমেরিকানকে এ বছর পুরস্কারটা দেবেন।
‘এখন কথা হলো আমেরিকায় তাঁরা কি কোনো সাহিত্যিক পেলেন না? ফিলিপ রথ, জয়েস ক্যারল ওটসের মতো শক্তিশালী সাহিত্যিকদের বাতিল করে দিলেন? বব ডিলান কেন? কোনো এক কালে ভাল লিরিক্স লিখেছেন বলে? ষাটের দশকে তুখোড় তুখোড় মিউজিসিয়ানদের সবাই খুব ভাল লিরিক লিখেছেন। মনে হচ্ছে যৌবনে কমিটির সদস্যদের প্রিয় গায়ক ছিলেন বব ডিলান। বুড়ো হিপিরা বড় নস্টালজিক হয়ে পড়েছেন আজ। নোবেল পুরস্কারকে নিজেদের নস্টালজিয়া পুরস্কার বানিয়ে ছেড়েছেন।’
ফেসবুকে তিনি বলেন, এঁরা তলস্তয়, ইবসেন, এমিল জোলা, গ্রাহাম গ্রীন, জন আপডাইক, মার্ক টোয়েনকেও পুরস্কার দেননি। শুধু তাই নয়, সুইডিশ একাডেমির নোবেল কমিটির সদস্যরা ১৯৭৪ সালে সাহিত্যের নোবেল পুরস্কার নিজেদেরই দিয়েছিলেন। এর পর থেকে এঁদের কোনো কাণ্ড কারখানায় আমি আর অবাক হই না।

Save

Please follow and like us:
20

Comments

comments