নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে প্রথমে !!

0
6
নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে প্রথমে !!
নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে প্রথমে !!
নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে প্রথমে !!

সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সারা পৃথিবীকেই আজ এনে দিয়েছে হাতের মুঠায়। সেই সাথে আধুনিক মানুষকে পরিণত করেছে ভার্চুয়াল মানুষ। ফলে বদলে যাচ্ছে আমাদের চিন্তা-ভাবনা, সম্পর্ক, জীবনের লক্ষ্য। এর সুফল আমাদের বিমোহিত করে। কিন্তু সচেতন না হলে এ সুবিধাই আমাদের জন্য হয়ে উঠতে পারে ভয়ঙ্কর বিপদের কারণ:

ফেসবুক-সামাজিক নেটওয়ার্ক
বিশ্বায়নের এ যুগে পৃথিবী আজ হাতের মুঠোয়। সামাজিক নেটওয়ার্ক বা সোশ্যাল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সারা পৃথিবী এখন এক ছাদের তলায়। ফেসবুক হলো সামাজিক নেটওয়ার্ক সাইট। এর একজন ব্যবহারকারী তার সব বন্ধুদের সাথে তথ্য, ছবি, ভিডিও প্রভৃতি শেয়ার করতে পারেন। এর মাধ্যমে নিজের ভালো-মন্দ, আনুষ্ঠানাদি, বিয়ের খরব ইত্যাদি হাজারো বিষয়ের তথ্য, ছবি কিংবা ভিডিও বিনিময় করতে পারা যায়। ফলে এর মাধ্যমে বদলে যাচ্ছে আমাদের দৈনন্দিনের জীবনের সম্পর্ক, চিন্তা ও লক্ষ্য। প্রিয় মানুষের সাথে যোগাযোগ সহজ করে দিয়েছে। সেই সাথে আধুনিক মানুষকে পরিণত করেছে ভার্চুয়াল মানুষে। অনেকেই নিজেকে বানিয়ে তুলছে ইন্টারনেট জগতের বাসিন্দা। অনেক চেনা-অচেনা মানুষই চলে আসছে বন্ধুর তালিকায়।
ফেসবুক বন্ধুকে অনেকে সত্যিকারের বন্ধু বলে মনে করে এবং ফেসবুকের মাধ্যমে একজন আর একজনের কাছে তথ্য পাঠানোকেই বন্ধুত্ব বলে বিবেচনা করে। কিন্তু সত্যিকারের বন্ধুত্ব অনেক গভীর, অনেক বেশি আন্তরিক, অনেক বেশি বাস্তব। কাজেই তথ্যপ্রযুক্তির বন্ধুত্বকে সত্যিকারের বন্ধুত্ব মনে করে কেউ যদি তাতে খুশি হয় তার ক্ষতির দিকটা বিবেচনায় নেয়া দরকার। তা না হলে ক্ষতি হওয়া অসম্ভব নয়।
ফেসবুক এমন মাধ্যম যার সুবিধা বলে শেষ করা যাবে না। কিন্তু এই সুবিধা অনেক সময়ই মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠতে পারে। বিশেষ করে, মেয়েরা অনেক ক্ষেত্রেই হয়রানির শিকার হতে পারে। অপরচিত কেউ রাত-দুপুরে কল দিতে পারে। অনেক সময় কোনো অনুমতি ছাড়াই বিভিন্ন গ্রুপে অ্যাড করে নিচ্ছে। কেউ আবার নিজের নামে পেইজ খুলে ইনভাইট করছে, ছবি বা স্ট্যাটাসের নিচে আপত্তিকর লিংক পোস্ট দিচ্ছে। এসব সমস্যায় সবাই কম-বেশি ভুক্তভোগী। তবে নিজেকে নিরাপদ রাখার জন্য কিছু সতর্কতা অবলম্বন করাও জরুরি। এক. কাউকে ফ্রেন্ডলিস্টে জায়গা দেয়ার আগে তার প্রোফাইলটা দেখে আসা, অচেনা কাউকে বন্ধু না করা। দুই. নিজের পাসওয়ার্ড স্ট্রং করে রাখা। তিন. ট্যাগ অপশন বন্ধ রাখা। চার. ব্যক্তিগত কোন পোস্ট পাবলিকলি শেয়ার না করা। পাঁচ. পারসোনাল ইনফরমেশনের (অর্থাৎ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কর্মস্থলের নাম ফোন নম্বর ইত্যাদি) ক্ষেত্রে প্রাইভেসি মেন্টেন করা।

ফেসবুকের ইতিবাচক ও নেতিবাচক দিক-গবেষণালব্ধ
ফেসবুকের ইতিবাচক দিক আছে কিনা; থাকলে সেগুলো কি ধরনের এবং নেতিবাচক দিক আছে কিনা; থাকলে সেগুলো কি ধরনের। সর্বোপরি ফেসবুক ব্যবহারের নেতিবাচক বা ইতিবাচক কোন প্রভাবটি বেশিমাত্রায় দেখা যায়। ফেসবুকের ইতিবাচক দিকের প্রাপ্ত তথ্য থেকে দেখা যায়, শতকরা ১৭ দশমিক ৫০ শিক্ষার্থী বলেছেন, বিশ্বের খবর রাখা যায়। শতকরা ১৫ জন বলেছেন, ফেসবুক ব্যবহারের মাধ্যমে একাকীত্ব দূর হয়। শতকরা ১৮ দশমিক ৭৫ জন বলেছেন, ফেসবুক ব্যবহারের ফলে বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রম সম্পর্কে জানা ও এসব কার্যক্রমের সাথে জড়িত হওয়া যায়। নিজের সম্পর্কে শেয়ার করা যায় বলেছেন ২৮ দশমিক ৭৫ জন। শতকরা ৪৬ দশমিক ২৫ জন বলেছেন, ফেসবুক স্বল্পব্যয়ে যোগাযোগের একটি মাধ্যম। এ ছাড়া পুরনো বন্ধু-বান্ধব খুঁজে পাওয়া যায় বলেছেন শতকরা ৩২ দশমিক ৫০ জন। বন্ধু-বান্ধবদের খবর পাওয়া যায় বলেছেন শতকরা ৩৫ শিক্ষার্থী। ফেসবুকের নেতিবাচক দিকের প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যাচ্ছে  শতকরা ২২ দশমিক ৫০ জন উত্তরদাতা বলেছেন, ফেসবুক ব্যবহারের ফলে সময়ের অপচয় হয়। ফেসবুক পারিবারিক জীবনে অশান্তি আনে বলে জানিয়েছেন শতকরা ১৩ দশমিক ৭৫ শিক্ষার্থী।

আবিষ্কারের দোষ নয়, দোষ ব্যবহারের। সুদূর অতীতে যোগাযোগের মাধ্যম ছিল কবুতর। পরবর্তীকালে ডাক বিভাগে চিঠিপত্র আদান-প্রদানের মাধ্যমে যোগাযোগের পরিধি বিস্তার লাভ করে। কালের বিবর্তনে এই যোগাযোগ আজ আরো আধুনিক থেকে আধুনিকতর হয়েছে। যেমন- ফেসবুক, টুইটার, ভাইবার, ম্যাসেঞ্জার, ইমো ও হোয়াটসআপ প্রভৃতি। এই প্রতিটি  মাধ্যমই নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে সতর্কতার সহিত ব্যাবহার করা উচিত।
Please follow and like us:
20

Comments

comments

SHARE
Previous articleকেমন ফার্স্ট লেডি হবেন মেলেনিয়া ট্রাম্প?
Next articleযে রাজকন্যারা রূপকথার মতো নন…
আমি শারমিন আক্তার মুক্তা। আমি বাংলাদেশে বাস করি এবং জন্ম সূত্রে বাংলাদেশি। আমি খুব সাধারন একটা মেয়ে, ন্যায়বান, বন্ধুভাবাপন্ন, স্বাধীন মতাবলম্বী। আমি জটিলতা, অসততা, মিথ্যাবাদিতা পছন্দ করিনা। আমি সব কিছুর ভাল দিকটা চিন্তা করি। আমার দুর্বলতা হল আমি অন্য মানুষকে খুব সহজেই বিশ্বাস করি। আমার শখ বই পড়া ওগান শোনা ।