যেভাবে নির্মিত হয় দ্রুত গতির বোয়িং বিমান

0
2
যেভাবে নির্মিত হয় দ্রুত গতির বোয়িং বিমান

যেভাবে নির্মিত হয় দ্রুত গতির বোয়িং বিমান

যেভাবে নির্মিত হয় দ্রুত গতির বোয়িং বিমান
যেভাবে নির্মিত হয় দ্রুত গতির বোয়িং বিমান
দূরত্ব কমিয়ে আনার পাশাপাশি যে প্রযুক্তি এ বিশ্বকে এনে দিয়েছে মানুষের হাতের মুঠোয় তা হলো উড়োজাহাজ। সময়ের সাথে সাথে এ আকাশযানের নির্মাণ প্রযুক্তিতে এসেছে পরিবর্তন। দ্রুত থেকে দ্রুততম সময়ে তৈরি করা হচ্ছে এক একটি উড়োজাহাজ।
কিভাবে তৈরি করা হয় বিশাল আকারের এ কলের পাখি? ওয়াশিংটনের সিয়াটলে অবস্থিত বোয়িং-এর কারখানায় চলছে বোয়িং সেভেন এইট সেভেন- নাইন ড্রিমলাইনার তৈরির কাজ। বিমানের আলাদা আলাদা অংশগুলো তৈরির মধ্যদিয়েই শুরু হয় উড়োজাহাজ নির্মাণ প্রক্রিয়া। অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সহায়তায় নিখুঁতভাবে এ কাজটি করে চলেন বোয়িং-এর কর্মীরা। খবর সময় নিউজ’র।
ইতোমধ্যে অপর একটি বিমানে করে এসে উপস্থিত হয় ড্রিমলাইনারের মূল কাঠামো বা ফিউসেলাজ। কয়েক দফায় এই অ্যাসেম্বল সেন্টারে নিয়ে আসা হয় বিমানের ককপিট, মূল কাঠামো, ডানা এবং লেজ।
অ্যসেম্বল ফ্লোরে ড্রিমলাইনারের মূল কাঠামোর সাথে জুড়ে দেয়া হয় ডানা, লেজ আর পাইলটের বসার স্থান ককপিট। স্বয়ংক্রিয় যন্ত্রের সাহায্যে নিখুঁতভাবে জুড়ে দেয়া হয় প্রতিটি অংশ। সবশেষে মূল কাঠামোর সাথে লাগানো হয় চাকা। ডানায় জুড়ে দেয়া হয় একজোড়া শক্তিশালী রোলস-রয়েস ট্রেন্ট ইঞ্জিন।
একই সাথে ভেতরে আরেক দল কর্মী চালিয়ে যায় অভ্যন্তরীণ সাজসজ্জার কাজ। বিমানের ভেতরের অংশটি যাত্রীদের জন্য আরামদায়ক ও নিরাপদ করে তুলতে কাজ করে তারা। সবশেষে একবার করে পরীক্ষা করে দেখা হয় প্রতিটি অংশ।
অ্যাসাম্বল শেষে আস্তো বিমানটিকে নিয়ে যাওয়া হয় আলাদা পেইন্ট ফ্লোরে। আর এখানেই বাহারি রঙে রাঙিয়ে তোলা হয় পুরো বিমানটিকে। এয়ারলাইন্স কোম্পানির নাম আর লোগো স্থান পায় এর গায়ে।
সবশেষে আকাশে ওড়ার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত হয় ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের বোয়িং সেভেন এইট সেভেন-নাইন ড্রিমলাইনার। ২১৬ আসন বিশিষ্ট এ বিমানটি চলতি বছরেই যুক্ত হবে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজের এয়ারলাইন্স বহরে।
Please follow and like us:
20

Comments

comments