খিদে পেলে উপব়ে চলে আসে

0
5

সামুদ্রিক মাছ মুখে রোচে না এনার৷ রাত দিন একগাদা সামুদ্রিক মাছ এবং সি-ফুড খেয়ে খেয়ে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন ইনি৷ তাই স্বাদ বদলাতে প্রতিদিনই বন্দরের পাশের রেস্তোরাঁতে হানা দেন ইনি৷

আয়ার্ল্যান্ডের উইকলো শহরের বন্দরের একপাশে রয়েছে লাইটহাউস রেস্তোরাঁটি৷ বিভিন্ন রকমের জিভে জল আনা সি-ফুডের জন্য খ্যাতি ফুড জয়েন্টটির৷ ইদানিং এক নয়া খদ্দের জুটেছে রেস্তোরাঁটির৷ কোনও দিন আসা একবর্ণও মিস হয় না নয়া খদ্দেরটির৷ এই পর্যন্ত শুনে হয়ত ভাবছেন ভালই তো, ব্যবসায় বেশ লক্ষ্মী লাভ হচ্ছে, এতে আর চিন্তার কি আছে৷ না মশাই এই খরিদ্দার খেয়ে দেয়ে খাবারের দাম দিতে পারে না৷ শুনে হয়ত ভাবছেন গরীব তাই দিতে পারে না, খিদের জ্বালা মেটাতে আসে ওই রেস্তোরাঁতে৷ এটাও হয়ত ভেবে ফেলেছেন রেস্তোরাঁ মালিকের মহানুভবতার কথা৷ আর সাসপেন্স বাড়াব না৷

যার সমন্ধে কথা হচ্ছে, সে কোনও মানুষই নয়৷ চারপেয়ে একটি সিলমাছের কথা বলা হচ্ছে৷ স্যামি নামের সিলমাছটির বাস উইকলো বন্দরের সমুদ্রে৷ তবে অন্য সঙ্গীদের মতো সমুদ্র থেকে মাছ ধরতে পছন্দ করে না সে৷ বরং প্রতিদিন সমুদ্র থেকে ডাঙায় এসে তারপর রাস্তা পেরিয়ে উল্টোদিকের রেস্তোরাঁয় যায় সে৷ এই রুটিনের কোন অন্যথা হয় না৷ সিলমাছের ইচ্ছাশক্তির কাছে হার মেনেছেন রেস্তোরাঁর কর্মীরাও৷ বিভিন্ন রকম ভাবে সিলটিকে তাড়ানোর চেষ্টা করেও সফল হননি কর্মীরা৷ শেষমেশ রেস্তোরাঁ থেকে মাছ এনে সমুদ্রর দিকে ছুড়ে দেন কর্মীরা৷ তখন সিলমাছটি যে স্পিডে ছুটে যায় মাছ খাওয়ার লোভে তা দেখে উসেইন বোল্টও লজ্জা পাবেন৷ ভিডিও দেখতে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুন৷

 

Please follow and like us:
20

Comments

comments