সন্তানের যত্ন নিন ঠিকই, কিন্তু বেশি খাইয়ে মোটা করবেন না

0
20
সন্তানের যত্ন নিন ঠিকই, কিন্তু বেশি খাইয়ে মোটা করবেন না

বাচ্চার খাওয়া-দাওয়া নিয়ে মায়ের চিন্তার শেষ নেই৷ একরত্তি হলে কী হবে, কোন খাবার যে মুখে তুলবে তা রীতিমতো গবেষণার বিষয়৷ এদিকে আবার অল্প একটু খেয়ে, না খেতে চাওয়ার অভ্যেসও আছে৷ সে কারণেই অনেক মা বাচ্চাকে জোর করে খাওয়াতে চান৷ কিন্তু তাতে ফল হয় বিপরীত৷ হাবিজাবি খাওয়ানোর ফলে বাচ্চা নয় ওবেসিটিতে আক্রান্ত হয়, বা স্বাস্থ্যবান বাচ্চাও দুর্বল হয়ে পড়তে পারে৷ তাই শুধু খাওয়ালেই হবে না, বাচ্চার খাওয়া-দাওয়া নিয়ে রীতিমতো সচেতন থাকা উচিত৷

চাইল্ড ওবেসিটি

রোগা চেহারা মানে বাচ্চা সঠিক পুষ্টি পাচ্ছে না, গোলগাল হলে তবে তার স্বাস্থ্য ঠিকঠাক, এ ধারণা আদতে ভুল৷ বরং মোটাসোটা বাচ্চারাই ‘চাইল্ড ওবেসিটি’তে আক্রান্ত৷ ছোটবেলায় বয়সের তুলনায় অতিরিক্ত মোটা হলে বড় হয়ে হার্টের অসুখ, ডায়াবেটিস, স্কিৎজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা অনেকটাই বেড়ে যায়৷ তাই সন্তানের যত্ন নিন ঠিকই, কিন্তু বেশি খাইয়ে মোটা করবেন না৷

অপরিমিত খাওয়ালেই যে বাচ্চা মোটা হবে তা সবসময় ঠিক নয়৷ হাইপো থাইরয়েড, ডিপ্রেশন হলেও অনেক সময় বাচ্চা বেশি খেয়ে ফেলে৷ কিংবা রিউম্যাটয়েড আর্থ্রাইটিস বা অ্যালার্জির ওষুধেও থাকতে পারে শিশুদের মোটা হওয়ার উপকরণ৷

স্বাভাবিক বৃ‌দ্ধির হিসেব-নিকেশ

বাচ্চার কোন বয়সে কত ওজন বা উচ্চতা হওয়া উচিত তার জন্য এই সহজ হিসেব জেনে রাখা ভাল৷ বয়সের প্রেক্ষিতে স্বাভাবিক ওজন জানতে বয়সের সঙ্গে ৪ যোগ করে যোগফলকে ২ দিয়ে গুণ করুন৷ অর্থাৎ কারও বয়স ৩ হলে তার ওজন হওয়া উচিত ১৪ কেজি৷

প্রথম বছরে সাধারণত বাচ্চার উচ্চতা ৭৫ সেণ্টিমিটার বাড়ে৷ চার বছরের বাচ্চার প্রতি বছরে উচ্চতা বাড়ে ১০০ সেণ্টিমিটার করে৷ চার থেকে দশ বছর বয়সিদের বছরে আনুমানিক বৃ‌দ্ধি ৫-১০ সেণ্টিমিটার৷

বাচ্চার খাওয়া-দাওয়া

  • শিশুর বয়স ছ’মাস হলে খিচুড়ি, আলুসিদ্ধ, আলুভাজা, দই, পায়েস খাওয়ানো উচিত৷ দশ মাস বয়স থেকে ফাইবারযুক্ত খাবার, ডালসিদ্ধ, ডিমের কুসুম আর এক বছর পার করলে মাছ খাওয়ানো ভাল৷ ১ বছর ৩ মাস থেকে মুরগির মাংসের ছোট টুকরো ও আর একটু বড় হলে অল্প পাঁঠার মাংস দেওয়া যায়৷
  • বাচ্চার দেড় বছর বয়স হলে দিনে চারবার খাওয়ানো উচিত৷ ছোট বলে তেলমশলা ছাড়া খাবার দিতে হবে এমন কোনও ব্যাপার নয়৷ বরং এতে খাবারের প্রতি বাচ্চার বিতৃষ্ণা জন্মায়৷ বড়রা যেমন স্বাদু খাবার খেতে পছন্দ করে ছোটরাও ঠিক তেমনই৷ সমীক্ষা  বলছে, ঝাল বাদে বাকি সব মশলা এমনকী সরষের তেল দিয়েও রান্না করা ভাল৷
  • বাচ্চারা রোজ মাছ খেতে পারে৷ পাশাপাশি মাছ-মাংস-ডিম ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বাচ্চাকে খাওয়ালে ভাল ফল মেলে৷ মাছের ক্ষেত্রে সামুদ্রিক মাছ পমফ্রেট, ইলিশ, আমোদিনী, কাজরী মাছ খাওয়ানো ভাল৷ মুরগির মাংস রোজ অল্প করে দেওয়া যায়৷ যদি বেশি ক্যালোরি বার্ন করার সুযোগ না পায় তাহলে তিন-চারদিন অন্তর ডিম খাওয়ানো উচিত৷ বাচ্চার ওবেসিটি থাকলে ডিমের হলুদ অংশ বর্জন করাই ভাল৷
  • রোজ ভাত, ডাল, রুটি, মরশুমি সবজি, একটা গোটা বা কয়েকরকমের ফলের টুকরো খাওয়াতে হবে৷ ভিটামিন, অ্যাণ্টি অক্সিডেণ্ট সমৃদ্ধ ফল, আপেল, কলা, লেবু নিয়মিত ও লুচি-পরোটা, চাউমিন দু-একদিন দেওয়া যেতেই পারে৷
  • টিফিনে রুটি, মুড়ি, চিঁড়েভাজা দেওয়া ভাল৷ কিন্তু বন্ধুদের সামনে রুটি, মুড়ি খেতে অনেক শিশু হীনমন্যতায় ভোগে৷ তাই ছোট থেকেই তাকে এগুলির গুণ যে ম্যাগি, বার্গার, কেকের তুলনায় অনেক বেশি তা বোঝাতে হবে৷ তবে বাইরের সব খাবার বারণ এমন নয়৷ মাঝেমাঝে অল্পস্বল্প দেওয়া যেতেই পারে৷

অভ্যাস বদলসন্তানের যত্ন নিন ঠিকই, কিন্তু বেশি খাইয়ে মোটা করবেন না

  • বাচ্চার খাওয়ার সময় টিভি চালু রাখা নয়৷
  • ফাস্টফুড বাদ, এতে ক্যালোরি বাড়ে৷
  • হেলথ ড্রিঙ্কস যে কোনও বাচ্চার স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর৷
  • লিকুইড খাবার না দিয়ে চিবিয়ে খেতে হয় এমন খাবার উপকারী৷

রোগাকে মোটা করতে চাইবেন না

  • সন্তান রোগা হলে অনেক সময় বাবা-মা তাকে স্বাস্থ্যবান করানোর জন্য বেশি করে মাখন-ঘি, ভিটামিন ট্যাবলেট খাওয়াতে উঠেপড়ে লাগেন৷  কিন্তু ভিটামিন খাইয়ে কখনওই মোটা করা যায় না৷ সপ্তাহে দু-তিনদিন এক চামচ ঘি দেওয়া যেতে পারে৷ তবে এসব বেশি দিলে রোগা বাচ্চারও কোলেস্টেরল বাড়ে৷ যদিও কেলেস্টেরলযুক্ত খাবার একদম বাদ দিলে শরীরে হরমোন তৈরি হয় না৷
  • তবে কোনওভাবেই খাওয়া নিয়ে বাচ্চাকে জোর করা উচিত নয়৷ এতে খাবারের প্রতি ভীতি জন্মায়, বিপত্তি বাড়ে৷ বাচ্চার খিদে পেলে তবেই খাওয়ানো শ্রেয়৷ তাতে যতটুকু খায় সেটাই ভাল৷
  • এছাড়া, বাচ্চারা বেশি করে খেলাধুলো করলে ক্যালোরি বার্ন হয়ে ঠিক সময় খিদে পাবে, খাবেও পরিমাণমতো৷
Please follow and like us:
20

Comments

comments