ধূমপান না করেও শুধুমাত্র প্রাকৃতিক দূষণের কারণে বহু মানুষের ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে

0
237
ধুমপানের কারনে মানুষ ঝুকে যাচ্ছে মৃত্যুর দিকে

ভাল তো?

যখন কেউ এ কথা জিগ্যেস করেন, আপনার উত্তরটা ‘হ্যাঁ’-ই হয়!
কিন্তু, আপনার ফুসফুস? মুশকিল হল, সে বেচারার উত্তরটা ‘হ্যাঁ’ না-ও হতে পারে!
আসলে, ও যে প্রাণভরে শ্বাস নিতে পারে না৷ সমীক্ষা বলছে, ধূমপান না করেও শুধুমাত্র প্রাকৃতিক দূষণের কারণে বহু মানুষের ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে৷ধুমপানের কারনে মানুষ ঝুকে যাচ্ছে মৃত্যুর দিকে

দূষণ ও ফুসফুস:
ফুসফুস এমন একটি অঙ্গ যা পরিবেশের দ্বারা সরাসরি প্রভাবিত হয়৷ শুধু বাইরের দূষণই নয়, ঘরের মধ্যেও দূষণে আক্রান্ত হয় ফুসফুস৷ ট্রাফিক জ্যাম, গাড়ির ধোঁয়া, বিভিন্ন শস্য, ফসলের রেণু যেমন ফুসফুসের ক্ষতি করে, তেমনই ঘরের মধ্যে জমে থাকা ধুলো, রান্নার স্টোভের গ্যাস থেকেও ক্ষতি হয়৷
এছাড়া ক্ষতি হয় বাতাসে ভেসে থাকা ধূলিকণা থেকে। ধূলিকণা বিভিন্ন আকারের হয়৷ শ্বাস নেওয়ার সময় ছোট আকারের ধূলিকণাগুলি ফুসফুসে প্রবেশ করে৷ দীর্ঘদিন ধরে শ্বাসনালিতে তা জমতে জমতে ফুসফুসের প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়৷

রিস্ক ফ্যাক্টর:
শিশু ও বয়স্কদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি৷
পরিবারে কারও ফুসফুসের সমস্যা থাকলে, অল্প শ্বাসকষ্ট থাকলে এবং ধূমপানের অভ্যাস থাকলে ক্ষতির সম্ভাবনা অনেক বেশি।

অসুখ:
আগেই বলা হয়েছে যে, ফুসফুসের বেশিরভাগ রোগের ক্ষেত্রেই দূষণের সরাসরি প্রভাব রয়েছে৷ ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ সিওপিডি), ক্রনিক ব্রঙ্কাইটিস, অ্যাজমা, ফুসফুসের ক্যানসারের ক্ষেত্রে বায়ুদূষণ অনেকটাই দায়ী৷ শ্বাস নেওয়ার সময়ে শ্বাসনালীর উপরের দিকেই বড় ধূলিকণা আটকে যায়৷ কিন্তু ছোট ধূলিকণাগুলো শ্বাসনালীতে প্রবেশ করে প্রদাহ তৈরি করে এবং শ্বাসনালীর প্রতিরোধ স্তরকেও নষ্ট করে দেয়৷ এই রোগের নামই ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ।

লক্ষণ:
ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ সাধারণত ৪০ বছরের বেশি বয়সিদেরই হয়৷ অনেক দিন ধরে চলতে থাকা শ্বাসকষ্ট হঠাৎ বেড়ে যাওয়া, কাশির সঙ্গে কফ ওঠা, ভোরের দিকে বেশি কাশি, অল্পতেই হাঁফিয়ে যাওয়া এই রোগের লক্ষণ৷
অ্যাজমার ক্ষেত্রে কাশি হয়, বাড়াবাড়ি হলে শ্বাস নিতে গেলে সাঁই-সাঁই শব্দ হয়৷
ফুসফুসে ক্যানসারের লক্ষণ অনেক দেরিতে দেখা যায়৷ শেষ পর্যায়ে ধরা পড়ে বলে এই ক্যানসারে মৃত্যু অনেক বেশি৷ অল্প অল্প কাশি যা সারতে চায় না, কফের সঙ্গে ৭-১০ দিন ধরে অল্প রক্তপাত ফুসফুসে ক্যানসারের লক্ষণ৷

দূষণ থেকে বাঁচতে:
দূষণ এড়াতে মাস্ক ব্যবহার জরুরি৷ মাস্ক উচ্চমানের হওয়াই বাঞ্ছনীয়৷ N95 মাস্ক এক্ষেত্রে একেবারে ঠিকঠাক৷
দুপুর, বিকেলের দিকে পরিবেশে দূষণের মাত্রা বেশি থাকে। তাই সকাল সকাল বাইরের কাজ সেরে ফেলা উচিত৷
যাঁরা কয়লাখনি, ট্রাফিক, পাওয়ার প্ল্যান্ট, শিপিং ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করেন, তাঁদের মাস্ক ব্যবহার অত্যন্ত জরুরি৷
ঘরে মশা মারার তেল, ধূপ ব্যবহার না করাই ভাল৷
বাচ্চার সামনে ধুলো ঝাড়া, ধূমপান করা চলবে না৷
বাড়ি রোজ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখুন৷
শিল্পাঞ্চলে বা পথে পথে ঘুরে যাঁরা কাজ করেন, তাঁদের নিয়ম করে ছ’মাস অন্তর ফুসফুসের আর হার্টের চেক-আপ করানো জরুরি৷

বয়স্কদের জন্য:
ক্রনিক ফুসফুসের রোগ, হার্টের অসুখ, কিডনি, ডায়াবেটিসের সমস্যা থাকলে ৫০ বছর বয়সের পর ইনফ্লুয়েঞ্জা ভ্যাকসিন, নিউমোকক্কাল ভ্যাকসিন নিতে হবে৷ ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে সুস্থ থাকলেও ইনফ্লুয়েঞ্জা ভ্যাকসিন, নিউমোকক্কাল ভ্যাকসিন দু’টি নেওয়া উচিত৷

Please follow and like us:
20

Comments

comments